সফল ফ্রিল্যান্সার হতে হলে যা যা করণীয়

5 Comments

হ্যালো বন্ধুরা, এনাম’স ব্লগ এ আপনাদেরকে স্বাগত জানাচ্ছি! কেমন আছেন আপনারা? এই ব্লগপোস্টে বিভিন্ন কমেন্টের মাধ্যমে আপনারা আপনাদের মূল্যবান প্রশ্নগুলো নির্দিধায় তুলে ধরতে পারেন। সকল প্রশ্ন থেকে যে প্রশ্নগুলো আপনারা অধিকবার করেছেন সেটার উপর ভিত্তি করে নতুন আর্টিকেল লেখা হবে। এখানে এমন কিছু প্রশ্ন তুলে ধরা হলো যা দেশি-বিদেশি শিক্ষার্থিরা বিভিন্ন পোস্টে প্রায়ই জানতে চান। উদাহরণস্বরুপ, আমি এই পেশায় নতুন- আমাকে সাহায্য করুন প্লিজ! আমি কোন ক্যাটাগরিতে কাজ করলে ভালো করতে পারবো? আমি মাইক্রোসফট ওয়ার্ড, মাইক্রোসফট এক্সেল, মাইক্রোসফট পাওয়ারপয়েন্ট ও মাইক্রোসফট এক্সেস ব্যবহার করে কাজ করতে পারি- আমি কোন ক্যাটাগরিতে কাজ করলে ভালো হবে? আমি কি করলে স্বল্প দক্ষতায়, স্বল্প পরিশ্রমে ও স্বল্প সময়ে বেশি বেশি ডলার ইনকাম করতে পারবো? এধরণের আরো অনেক প্রশ্ন করতে দেখা যায়। আজকের এই পোস্টটি মূলত তাদের জন্যই লেখা।

একটি বিষয় আপনাদের মনে রাখতে হবে। আপনি একটি গ্লোবাল মার্কেটপ্লেসে কাজ করতে যাচ্ছেন। এখানে প্রতিযোগিতা হয় বিশ্বব্যাপী। কাজের দক্ষতা ও মেধা অর্জনের কোনো সর্টকাট নেই।

যাই হোক, আমাদের আজকের আলোচ্য বিষয় হলো: সফল ফ্রিল্যান্সার হতে হলে যা যা করণীয়। নিচের বিষয়গুলো সঠিকভাবে অনুশীলন করতে পারলে আপনি ফ্রিল্যান্সার হিসেবে সফল হবেন ইন-শা আল্লাহ্।

1. Choose a category or, a subcategory

সর্বপ্রথমে আপনি যে ক্যাটাগরি বা সাবক্যাটাগরিতে কাজ করবেন তা নির্ধারণ করতে হবে। প্রয়োজনে গুগল সার্চ ব্যবহার করে বিভিন্ন মার্কেটপ্লেসে যে ধরণের কাজ পাওয়া যায় তার একটি খসরা তালিকা তৈরি করা যেতে পারে। তারপর আপনাকে নির্বাচন করতে হবে যে আপনি কোন ক্যাটাগরিতে কাজ করার জন্য উপযোগী। এটা আপনাকে নিজেই নির্ধারণ করতে হবে। অন্য কেউ এটা নির্ধারণ করে দিতে পারেন না। কাজটি আপনি করবেন অন্য কেউ করবেন না। তবে অবশ্যই জেনে, শুনে ও বুঝে ক্যাটাগরি নির্বাচন করতে হবে।

মার্কেটপ্লেসে সাধারণত যেসব ক্যাটাগরি পরিলক্ষিত হয় তা নিম্নরূপ:
(1) Web, Mobile & Software Development (2) IT & Networking (3) Data Science & Analytics (4) Engineering & Architecture (5) Design & Creative (6) Writing (7) Translation (8) Legal (9) Admin Support (10) Customer Service (11) Sales & Marketing (12) Accounting & Consulting. সাব ক্যাটাগরিসহ আরো বিস্তারিত জানতে Browse top freelance jobs by category – Upwok এ ক্লিক করুন। আপনি আপনার দক্ষতা এবং অভিজ্ঞতা অনুসারে এক বা একাধিক ক্যাটাগরি ও সাব ক্যাটাগরি নিয়ে কাজ করতে পারবেন। মনে রাখবেন আপনি যত বেশি দক্ষতা অর্জন করতে পারবেন তত বেশি মার্কেটপ্লেসে কাজ করার উপযোগী হবেন।

2. Learn enough

দ্বিতীয় ধাপে আপনাকে আপনার ক্যাটাগরি অনুসারে যথেষ্ট স্টাডি করতে হবে। এ ক্ষেত্রে আপনি গুগল বা ইউটিউব এর সাহায্য নিতে পারেন। আপনার পরিচিত ঐ ক্যাটাগরির কোনো ফ্রিল্যান্সার পেলে সেখান থেকেও আপনি যথেষ্ট সাহায্য পেতে পারেন। অনলাইনে এখন অনেক ফ্রি রিসোর্স পাওয়া যায়। সঠিক পদ্ধতিতে সার্চ দিয়ে আপনাকে অনুশীলন করতে হবে। নিচে সার্চের কৌশল উল্লেখ করা হল: যেমন “Free web development tutorial” লিখে Google কিংবা YouTube এ সার্চ দিয়ে আপনি ওয়েব ডেভেলপমেন্ট সংক্রান্ত অনেক টিউটোরিয়াল ফ্রিতে অনুশীলন করতে পারবেন। তবে অবশ্যই আপনি আপনার ক্যাটাগরি অনুসারে সার্চ দিবেন।

3. Choose a marketplace

এটি তৃতীয় পর্যায়ের আওতাভুক্ত। আপনি এখন যে কোনো প্লাটফর্ম ব্যবহার করে একটি নির্দিষ্ট ক্যাটাগরিতে কাজ করার যোগ্যতা ও অভিজ্ঞতা রাখেন। অতএব, আপনাকে এখন একটা ভালো মার্কেটপ্লেস খুঁজতে হবে। বায়াররা মার্কেটপ্লেস ছাড়া সাধারণত কাজ করতে উৎসাহী হন না। এক্ষেত্রেও আপনি Google এর সাহায্য নিতে পারেন। যেমন আপনি “Top freelancing site” কী ওয়ার্ড ব্যবহার করে Google এ সার্চ দিয়ে এটি করতে পারেন। এ পর্যায়ে নির্ধারণ করতে হবে নির্দিষ্ট ক্যাটাগরি অনুসারে কোন মার্কেটটি আপনার জন্য ব্যবহার করা অধিক উপযোগী। এ সিদ্ধান্তও আপনাকে নিজেই নিতে হবে। যে ব্যক্তি যেই মার্কেটপ্লেসে কাজ করেন তার বাইরে অন্য মার্কেটপ্লেস সম্পর্কে ঐ ব্যক্তির ধারণা নাও থাকতে পারে। নিজেকে আত্মবিশ্বাসী করে গড়ে তুলুন। নিজের সিদ্ধান্ত নিজে নিন। নিজের প্রতি ভরসা রাখুন। নিচে ক্যাটাগরি ভিত্তিক কিছু মার্কেটপ্লেসের নাম উল্লেখ করা হলো। আপনি নিজেও সার্চ করে দেখতে পারেন “Top freelancing site based on (your category)”। যেমন- (1) Upwork, (2) Fiverr, (3) PeoplePerHour, (4) Workana, (5) 99Designs, (6) TopCoder, (7) Toptal, (8) Crossover, (9) PrestoExperts, (10) Expert360, (11) CGTrader, (12) DesignCrowd, (13) Freelancer, (14) Guru, (15) Servicescape, (16) Hubstaff Talent, (17) CloudPeeps, (18) Truelancer, (19) Flexjobs, (20) Zeerk, (21) ProductionHUB, (22) Media Bistro, এবং (23) Mandy.

4. Study the rules and regulations of a marketplace

মার্কেটপ্লেস নির্ধারণ করার পর পরই আপনাকে উক্ত মার্কেটপ্লেসের বিধি-বিধান জানতে হবে। কারণ প্রত্যেকটা মার্কেটপ্লেসের কিছু নির্দিষ্ট নিয়ম কানুন রয়েছে- যা মেনে চলা বাধ্যতামূলক, অন্যথায় আপনি যে কোনো ভাবে ক্ষতিগ্রস্থ হতে পারেন।

5. Learn about payment methods

প্রত্যেকটা মার্কেটপ্লেসের পৃথক পৃথক পেমেন্ট মেথড রয়েছে। কোন পেমেন্ট মেথড আপনার জন্য উপযোগী সেটা আপনাকেই নির্ধারণ করতে হবে। পেমেন্ট মেথড সম্পর্কে ধারণা না থাকলে কাজ করার পরে পেমেন্ট উত্তোলন নিয়ে আপনাকে ঝামেলায় পড়তে হতে পারে।

6. Create an account

সবকিছু জেনে নিশ্চিত হয়ে আপনাকে আপনার নির্ধারিত মার্কেটপ্লেসে একটি একাউন্ট তৈরি করতে হবে। আপনার জাতীয় পরিচয় পত্র, পাসপোর্ট, ড্রাইভিং লাইসেন্স এবং ব্যাংক একাউন্ট ইত্যাদিতে নাম, ঠিকানা ও অন্যান্য তথ্য যেভাবে দেওয়া আছে সেই তথ্যের আলোকে আপনাকে একটি একাউন্ট তৈরি করতে হবে। মনে রাখতে হবে আপনার জাতীয় পরিচয় পত্র অনুসারে আপনার পাসপোর্ট, ড্রাইভিং লাইসেন্স এবং ব্যাংক একাউন্ট এর তথ্য যেন একই থাকে। একাউন্ট তৈরি করার পরবর্তী পর্যায়ে মার্কেটপ্লেস কর্তৃপক্ষ আপনার একাউন্টটি ভিডিও কলের মাধ্যমে ভেরিফাই করতে পারেন।

7. Submit a Proposal

আপনি এখন পুরোপুরি একজন ফ্রিল্যান্সার। আপনার নির্ধারিত ক্যাটাগরি অনুসারে জবপোস্ট দেখে আপনি জবে এপ্লাই করবেন। আপনাকে প্রতিটি জবের ক্ষেত্রে একটি ইউনিক কভার লেটার লেখে সাবমিট করতে হবে। কভার লেটার লেখার সময় ক্লায়েন্ট কোন কোন প্রয়োজনীয়তার আলোকে জবপোস্ট করেছেন সেই অনুসারে আপনাকে লিখতে হবে। প্রাথমিক ভাবে ক্লায়েন্ট কর্তৃক প্রায় ২০০ আবেদনকারীর মধ্যে হতে ১০-১৫ জনকে সর্টলিস্টেড করে ইন্টারভিউ কল করেন।

8. Make a quick preparation for the interview and help yourself get hired

এ পর্যায়ে কায়েন্ট কিছু প্রশ্নের উত্তর আশা করেন। আপনার যোগ্যতা, দক্ষতা ও মেধার তীক্ষ্ণতায় আপনাকে এগুলো মোকাবিলা করতে হবে। ক্লায়েন্ট আপনার জবাবে সন্তুষ্ট হলে আপনাকে হায়ার করতে পারেন। Fiverr এর ক্ষেত্রে অবশ্য গিগ তৈরি করে বিক্রয় করতে হয়। এদের প্লাটফর্মে কিছুটা ভিন্নতা রয়েছে।

9. Submit your work

ক্লায়েন্টের সন্তুষ্টি অর্জনে যথাসাধ্য চেষ্টা করুন। অতঃপর চুড়ান্ত কাজটি সংশ্লিষ্ট প্লাটফর্মের মাধ্যমে জমা দিন। পেমেন্ট মেথড ঠিক থাকলে একটি নির্দিষ্ট সময়ে আপনার একাউন্টে টাকা বা ডলার জমা হবে। কন্ট্রাক্ট শেষ হলে ক্লায়েন্ট এবং ফ্রিল্যান্সার কর্তৃক উভয়ে উভয়কে ফিডব্যাক প্রদান করতে হয়। এভাবেই একজন ফ্রিল্যান্সার তার কাজ করে থাকেন।

পরিশেষে বলতে চাই যে, একজন সফল এবং বিশ্বস্ত ফ্রিল্যান্সার হওয়ার চেষ্টা করার জন্য আপনার দৃঢ় প্রত্যই যথেষ্ট। আপনারা উপকৃত হলেই আমি নিজেকে ধন্য মনে করব। হ্যাপী ফ্রিল্যান্সিং!

এনামুল হক

Click here to read the article in English
Previous Post
Nine Tips to be a Successful Freelancer
Next Post
How to Build or Improve your Email Marketing List?

5 Comments. Leave new

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Fill out this field
Fill out this field
Please enter a valid email address.
You need to agree with the terms to proceed

Menu